নিত্যপণ্যের বাজারে বাজেটের প্রভাব পড়েনি

0
28

যমুনা নিউজ: জাতীয় সংসদে বৃহস্পতিবার (১১ জুন) ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার প্রস্তাবিত বাজেট উপস্থাপন করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। সাধারণত বাজেট ঘোষণার পরপরই নিত্যপণ্যের বাজারে এর প্রভাব লক্ষ্য করা যায়। বাজেট কার্যকর হওয়ার আগেই একশ্রেণির ব্যবসায়ী পণ্যের দাম বাড়িয়ে দেন। অন্যান্য বছর এমন প্রবণতা দেখা গেলেও এবার তা ঘটেনি। শুক্রবার (১২ জুন) রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, নিত্যপণ্যের দামে বাজেটের কোনও প্রভাব পড়েনি। কোনও কোনও পণ্যের দাম ৫-১০ টাকা বেড়েছে, আবার কোনোটার দাম কমলেও ব্যবসায়ীরা বলছেন, এর সঙ্গে বাজেটের সম্পর্ক নেই। তবে ঢাকাসহ সারাদেশে বৃষ্টি থাকায় সবজির দাম কিছুটা বেড়েছে।

২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য চাল, আটা, আলু, পেঁয়াজ, রসুন ইত্যাদি স্থানীয় পর্যায়ে সরবরাহের ক্ষেত্রে উৎসে কর ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২ শতাংশ করার প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী। একইভাবে তিনি রসুন ও চিনি আমদানি পর্যায়ে অগ্রিম আয়কর ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২ শতাংশ করার প্রস্তাব করেন। তবে বাজারে এসব পণ্যের দামে এর কোনও প্রভাব লক্ষ্য করা যায়নি।

রাজধানীর বাজারে চাল ব্যবসায়ীরা বলছেন, চালের দাম বেশ কিছুদিন যাবত কমেছে। তবে বাজেটের কারণে নতুন করে চালের দাম কমেনি। অন্যদিকে শুল্ক আরোপ করায় পেঁয়াজের দাম বাড়ার কথা থাকলেও দেশি ও আমদানি করা দুই ধরনের পেঁয়াজের দামই কমেছে। খুচরা পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা বলছেন, কিছুদিন আগে ভারত থেকে পেঁয়াজ এসেছে। দেশি পেঁয়াজও পর্যাপ্ত পরিমাণে আছে। আর রোজা ও ঈদ চলে যাওয়ার কারণে পেঁয়াজের চাহিদাও আগের মতো নেই। এ কারণে পেঁয়াজের দাম কমেছে। অবশ্য পাইকারিতে চিনির দাম কিছুটা কমেছে বলে দাবি করেন মৌলভী বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাজী গোলাম মাওলা। তিনি বলেন, ‘আজ শুক্রবার বন্ধের দিন। বেচা-বিক্রি নেই। তবে বৃহস্পতিবার (১১ জুন) সন্ধ্যার পর চিনির দাম প্রতি বস্তায় ২০ থেকে ৩০ টাকা কমেছে।’ তিনি বলেন, ‘বাজেটের প্রভাব হয়তো শনিবার (১৩ জুন) থেকে ধীরে ধীরে পড়তে পারে।’

এদিকে বাজার ঘুরে দেখা যায়, এক সপ্তাহের ব্যবধানে ব্রয়লার মুরগির দাম কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে ১৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া, কেজিতে ৫ টাকা বেড়েছে বড় ও মাঝারি মানের মশুর ডালের দাম। তবে কেজিতে ১০ টাকা কমেছে ছোট দানার মশুর ডালের দাম। কমার তালিকায় আছে আদা ও রসুনের দামও। কেজিতে ২০ টাকা কমে রসুন এখন বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৩০ টাকা করে। কেজিতে ১০-২০ টাকা কমে প্রতিকেজি আদা বিক্রি হচ্ছে (মানভেদে) ১৪০-১৫০ টাকা। দাম কমার তালিকায় আছে— জিরা, সয়াবিন তেল ও লবঙ্গ। আমদানি করা পেঁয়াজের দাম কমে এখন ২৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। গত সপ্তাহের তুলনায় কমেছে আলুর দামও। ব্যবসায়ীরা বলছেন, আলুর দাম বুধবার (১০ জুন) থেকেই কমেছে। এ ব্যাপারে মানিক নগর এলাকার ব্যবসায়ী ইউসুল আলী বলেন, ‘গত বুধবার থেকে প্রতিকেজি ২৬ টাকা দরে আলু বিক্রি করছি। আজও ২৬ টাকাই কেজি। বাজেটের কারণে আলুর দাম কমেনি বলেও জানান তিনি। যদিও গত সপ্তাহে আলু কেজি বিক্রি হয়েছে ৩০ টাকা কেজি।

বাজারে সবজি ভরপুর থাকলেও গত সপ্তাহের তুলনায় প্রায় সব ধরনের সবজির দাম কেজিতে বেড়েছে ১০ থেকে ২০ টাকা। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বৃষ্টির কারণে সবজির দাম বেড়ে গেছে।

কেজিতে ১০ থেকে বেড়ে পটল, ঝিঙা, চিচিঙা-ধন্দুল ৪০ থেকে ৬০ টাকা, কাকরোল ৭০ টাকা, করলা ৬০-৭০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। প্রতিকেজি টমেটো ১০ টাকা বেড়ে ৪০-৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পেঁপে, ঢেঁড়স, কচুর লতি, বেগুন ৪০-৮০ টাকা, কাঁচা মরিচ ৫০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া ৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

মুরগির দাম বাড়লেও অপরিবর্তিত রয়েছে ডিমের দাম। বর্তমানে প্রতি ডজন ফার্মের মুরগির ডিম বিক্রি হচ্ছে ৯০-৯৫ টাকা, দেশি মুরগির ডিম ১৪০-১৫০ টাকা, হাঁসের ডিম বিক্রি হচ্ছে ১১৫-১২৫ টাকা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here